সাকিবের স্যালুটের জবাবে কী বললেন স্টোকস?

ডেস্ক রিপোর্ট» বর্তমানে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের সবচেয়ে মেজাজী খেলোয়াড় বেন স্টোকস। ব্যাটে-বলে সমান ধার তার। ইতিমধ্যে বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার হয়ে উঠেছেন তিনি। সম্প্রতি শেষ হওয়া সিরিজে তার বিপক্ষে বাংলাদেশের বোলার ও ব্যাটসম্যানদের ভুগতে হয়েছে। ওয়ানডে সিরিজে ইংল্যান্ডের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান তার। আবার দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ইংল্যান্ডের হয়ে রান এবং উইকেট- দুই ক্ষেত্রেই সবার ওপরে তিনি। বাংলাদেশ সফরে কয়েকবার মেজাজ হারিয়েছেন স্টোকস। ওয়ানডে সিরিজ চলাকালে তামিম ইকবালের তিকে তেড়ে যাওয়ার পর প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে বাংলাদেশের আবদুল মজিদের সঙ্গে হাত না মেলানোর ঘটনায় সমালোচিত তিনি। আর সর্বশেষ মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে তিনি দুই ঘটনার অনুঘটক। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমানের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে ম্যাচ ফির’র ১৫ শতাংশ খুইয়েছেন স্টোকস। আর শেষ ইনিংসে ইংল্যান্ডের মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে আউট করে সাকিব আল হাসানের ‘স্যালুট’ দেয়ার দৃশ্য এখন সবার সামনে। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক আলোচনা। স্টোকসকে ২৫ রানে বোল্ড করে ফোরানোর পর সাকিব কেন ওই স্যালুট দিয়েছিলেন তার ব্যখ্যা তিনি দেননি। তবে দর্শকরা মনে করছেন নানা কারণ। অনেকে মনে করছেন, পুরো সিরিজে স্টোকস যে কা- করেছে তারই জবাব দিয়েছেন সাকিব। তবে অনেকে মনে করছেন, ইংল্যান্ড দল বাংলাদেশ সফর করায় তাদের প্রতি স্যালুট জানিয়েছেন সাকিব। আর এটা তিনি প্রকাশ করেছেন সিরিজে ইংল্যান্ডের সেরা খেলোয়াড়কে স্যালুট জানিয়ে। কেউ কেউ মনে করছেন, এই ঘটনায় সাকিব এবং স্টোকসের মধ্যে একটা ‘শত্রুতা’ তৈরি হলো। কিন্তু আসলে তা নয়। এই ঘটনায় তাদের মধ্যে কোনো শত্রুতা তৈরি হয়নি। তারা আছেন ঠিক তাদের মতো। ম্যাচ শেষে স্টোকস ও সাকিবের ট্ইুটেই সেটা ভাল বোঝা যায়। ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ দলকে অভিনন্দন জানিয়ে স্যালুট দেন স্টোকস। লেখেন, ‘দারুণ একটি দ্বিপাক্ষিত সিরিজ উপহার দেয়ার জন্য বাংলাদেশকে ধন্যবাদ। তাদের নিরাপত্তারক্ষাকারী বাহিনী, জনগণ এবং অবশ্যই সাকিববে স্যালুট। ২০১৪-১৫ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়ান বিগ ব্যাশে একই দলে খেলেন সাকিব ও বেন স্টোক। দু’জনেরই দল ছিল মেলবোর্ন রেনেগেডস। দু’জনের মধ্যের বন্ধুত্ব অনেক আগেই। স্টোকসের টুইটারের জবাবে সাকিবও টুইট করেন। লেখেন, ‘বন্ধু বেন, তুমি সবসময় আমার একজন দারুণ সতীর্থ।’ সাকিবের এই টুইটের উত্তরে বেশ মজা করেন স্টোকস। টুইটারে একটি হাসির ইমোজি দিয়ে স্টোকস লেখেন, ‘যদি তুমি আমাকে আউট করা বন্ধ কর তাহলে আরো ভাল সতীর্থ হয়ে উঠবে।’ খেলার মাঠে যা-ই হোক প্রতিপক্ষ দুই দলের খেলোয়াড়দের এমন বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণে শেষ পর্যন্ত ক্রিকেটেরই জয় হয়। দুই টেস্টের চার ইনিংসে তিনবাইর স্টোকসকে আউট করেন সাকিব। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে বোল্ড করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে তাকে এলবিডাব্লিউ করেন। তবে চার ইনিংসে একবারও সাকিবকে আউট করতে পারেননি স্টোকস।

প্রকাশক সম্পাদক : জাহাঙ্গীর কবির লিটন
এলাহী মার্কেট , ২য় তলা, বড় মসজিদ গলি, ট্রাংক রোড,ফেনী।
jagofeni24@gmail.com
© 2016 allrights reserved to JagoFeni24.Com | Desing & Development BY PopularITLtd.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com