বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগে ১২৬১৯ জন নির্বাচিত

শিক্ষা ডেস্ক» বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগের জন্য ১২ হাজার ৬১৯ জনকে নির্বাচিত করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)।

সচিবালয়ে রবিবার (৭ অক্টোবর) শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এক সংবাদ সম্মেলনে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেধাভিত্তিতে শিক্ষক নিয়োগে অনলাইনে এনটিআরসিএর বাছাই প্রক্রিয়ার ফল প্রকাশ করেন।

সারা দেশের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের জন্য এনটিআরসিএ প্রথমবারের মতো নির্বাচিত শিক্ষকদের তালিকা প্রকাশ করল।

নির্বাচিত প্রার্থী ও চাহিদা দেওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আবেদনকারীসহ সংশ্লিষ্টরা http://ngi.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে ফল দেখতে পারবেন। সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী কম্পিউটারে বাটন টিপে ফল প্রকাশ করেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচিত প্রার্থীরা এখন সরাসরি সেখানে (শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে) গিয়ে যোগদান করবেন। কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। আমরা বলতে পারি যে কার্যক্রম হচ্ছে তা শতভাগ স্বচ্ছ। সব ধরনের বিড়ম্বনা মুক্ত। আশা করি এটা খুবই ফলদায়ক হবে।’

শিক্ষানীতি অনুযায়ী এ প্রক্রিয়ায় শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘প্রথমবার করতে গিয়ে বোঝা গেল এটা খুবই কঠিন কাজ। কঠিন পরিশ্রম করতে হয়েছে। নিরপেক্ষ হওয়ার জন্য যাতে জিনিসটা গোপন থাকে এমনভাবে এটি হয়েছে। এর মধ্যে তদবিরের কোনো সুযোগ নেই, স্বজনপ্রীতির কোনো সুযোগ নেই। যিনি যোগ্য তিনিই হবেন।’

নিয়োগের ক্ষেত্রে কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান টাকা চাইলে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে- একজন সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘টাকা চাওয়ার কোনো সুযোগই নেই। তারপরও কেউ টাকা চাইলে আমাদের জানাতে পারেন। আমরা প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেব।’

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ছয় হাজার ৪৭০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ১৪ হাজার ৬৬৯ জন শিক্ষক নিয়োগের চাহিদা দিয়েছে।

আবেদনকারী ২ লাখ ৪৯ হাজার ৫০২ জন, এরা ১৩ রাখ ৭৫ হাজার ১৮৭টি আবেদন করেছেন। আবেদনকারীদের মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৬৮ হাজার ৯৩৮ জন ও মহিলা ৮০ হাজার ৫৬৪ জন।

শারীরিক শিক্ষা, ইবতেদায়ি প্রধানসহ কয়েকটি বিষয়ের ৭১৮টি পদের বিপরীতে কোনো আবেদন পাওয়া যায়নি। বিভিন্ন কারণে বাছাই স্থগিত পদের সংখ্যা ৬৮৫টি।

মহিলা কোটার ২০৪টি পদে কোনো আবেদনকারী পাওয়া যায়নি। মামলার কারণে স্থগিত এক হাজার ৯৫টি পদের জন্য আবেদন করেছেন ৬২ হাজার ৪৮ জন। ৭১৮টি পদের বিপরীতে কোনো আবেদন না পাওয়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘কী কারণে আবেদন পড়েনি। তা আমরা দেখব।’

আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের নিয়োগ দিত। এ ক্ষেত্রে নিয়োগের জন্য ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে মোট অঙ্কের ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ ছিল।

শিক্ষক নিয়োগের নতুন নিয়মে নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা গত ২০ জুলাই থেকে ১৬ আগস্ট পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করে। শিক্ষক নিয়োগের জন্য বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো থেকে অনলাইনে চাহিদাও নেয় এনটিআরসিএ।

এনটিআরসি মাধ্যমে নিয়োগের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ওয়েবসাইট বা অ্যাপের মাধ্যমে গত ৬ থেকে ২৫ জুন নিজ প্রতিষ্ঠানের শূন্য পদে শিক্ষকের চাহিদা জানায়।

গত বছরের ২১ অক্টোবর ‘বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা গ্রহণ ও প্রত্যয়ন বিধিমালা, ২০০৬’ সংশোধন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর ১১ নভেম্বর থেকে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

গত ৩০ ডিসেম্বর সংশোধিত বিধিমালা অনুযায়ী নতুন নিয়মে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চাহিদার ভিত্তিতে এনটিআরসিএর মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগে নতুন নিয়মের পরিপত্র জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে শিক্ষক নিয়োগের ওপর নিষেধাজ্ঞা উঠে যায়। নতুন এ ব্যবস্থায় শিক্ষক নিয়োগের ক্ষমতা হারায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি।

প্রকাশক সম্পাদক : জাহাঙ্গীর কবির লিটন
এলাহী মার্কেট , ২য় তলা, বড় মসজিদ গলি, ট্রাংক রোড,ফেনী।
jagofeni24@gmail.com
© 2016 allrights reserved to JagoFeni24.Com | Desing & Development BY PopularITLtd.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com